জীবন বদলানোর টিপস : ক্ষমা

9

[জিম্বাবুয়ের মুফতি ড. ইসমাইল মেনক এ সময়ের অন্যতম প্রসিদ্ধ ইসলামী স্কলার। তিনি মদিনায় ইসলামের ওপর উচ্চতর পড়াশোনা এবং অলডারগেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সোশ্যাল গাইডেন্সের ওপর ডক্টরেট করেছেন। টুইটারে কোভিড-১৯ এর লকডাউনের সময় অনুশীলনের জন্য গিফট করা দু’টি বইয়ে জীবনাচরণের বিভিন্ন মৌলিক বিষয়ে তিনি সহজ সরল কিছু টিপস দিয়েছেন। লকডাউন গিফটের জীবন বদলানোর পঞ্চম আলোচনা হলোÑ ক্ষমা। এই পরিচ্ছেদের পুরোটি আজ। অনুবাদ করেছেন মাসুমুর রহমান খলিলী।]
পুরো জগতকে নিয়ে আপনার জীবনে একটি পার্থক্য তৈরি করুন; ক্রোধকে মোকাবেলা করুন করুণা দিয়ে, নিষ্ঠুরতার মোকাবেলা করুন দয়া দিয়ে। ক্ষমা করুন এবং এগিয়ে যান।
গতকালের দাগ বা বিপত্তি আজ ধরে রাখবেন না। তাদের যেতে দিন। নতুন আশা নিয়ে শুরু করুন আজকের দিন। একটি কৃতজ্ঞ এবং খুশি হৃদয় দিয়ে আজকের দিনকে আলিঙ্গন করুন। মনে রাখুন সর্বশক্তিমান আমাদের কত কিছু দিয়ে কৃপা করছেন।
হেদায়েত বা সত্যপথ পাওয়া সর্বশক্তিমানের হাতে; এটা তাদের কাছে আসে যারা অক্লান্ত এবং আন্তরিকভাবে এর অনুসন্ধান করে।
ক্ষোভ ছেড়ে দিন এবং অন্যদের মধ্যে শত্রুতা তৈরি করবেন না। ঘৃণা ও হিংসা ছাড়াই শান্তিতে বাঁচার চেষ্টা করুন। জীবনে অনেক চাপ কমে যাবে এবং সুখী হবেন।
আপনি যে আচরণের সম্মুখীন হতে চান তেমন আচরণ অন্যের সাথে করুন। আপনি যদি সর্বশক্তিমানের কাছে ক্ষমা চান, তবে অন্যকে ক্ষমা করুন। আপনি প্রথম পদক্ষেপটি গ্রহণ করুন। আপনার সৃষ্টিকর্তাকে খুশি করুন।
একটি বিদ্বেষ থেকে মুক্তির মাধ্যমে নিজেকে একটি মহা বোঝা থেকে মুক্ত করা হয়।
অন্যকে ক্ষমা করা দুর্বলতা নয়। ক্ষমা করতে শক্তিশালী ব্যক্তি হওয়া লাগে।
সর্বদা পরিষ্কার হৃদয় নিয়ে ঘুমাতে যান। দিনে যা কিছু মন্দ ঘটে গেছে সব কিছুকে মুছে ফেলুন। তাদের ক্ষমা করুন যে আপনাকে কষ্ট দিয়েছে। অনুতপ্ত হন, তওবা করুন এবং সর্বদা তাকে স্মরণ করুন।
অন্যকে ক্ষমা করে দেয়ায় তাদের চেয়ে আমাদেরই বেশি উপকার হয়। হৃদয়, মন ও আত্মাকে ভার থেকে মুক্তি প্রদান অমূল্য।
সবাই পাপী, তবে সবাই ক্ষমা প্রার্থনা করে না। সুতরাং অবিচ্ছিন্নভাবে এটি করুন। ক্ষমা আপনাকে তাঁর কাছে ফিরিয়ে আনার একটি শক্তিশালী উপায়।
লোকেরা আপনাকে হেয় করার সময় মন খারাপ করবেন না। লক্ষণগুলো পাঠ করুন। সর্বশক্তিমান আপনাকে বলছেন যে, মানুষ ভুল করে, তারা দুর্বল। সুতরাং সর্বশক্তিমানের ওপর নির্ভর করার পথকে বেছে নিন। যারা আপনার অতীতকে নামিয়ে আনতে চায় তারা এটাকে হুমকি বলে মনে করেছে, যা আজ আপনি অনুভব করছেন। আপনাকে বোকা বানাতে দেবেন না তাদের। মনোযোগী থাকুন।
কিছু লোক বিতর্ক করে সাফল্য লাভ করতে চায়। তারা ছোট এবং ক্ষুদ্র জিনিসগুলো নিয়েও এটি করে। এ ধরনের যুক্তিতে আকৃষ্ট হতে অস্বীকৃতি জানান। জীবন এর চেয়ে অনেক ভালো!
ক্ষোভ পোষণ করে রাখবেন না অথবা অন্যকে নিজের মন থেকে দোষ দেবেন না। এটা আপনার কাছ থেকে আসা এমন একটা বিষ যা আপনি কখনোই অনুধাবন করেননি। এর কারণে আপনার আত্মার ক্ষতি করবেন না। ক্ষমা করে দিন।
কোনো ব্যক্তি আগে কী ছিল তা দেখা এবং তার সমালোচনা করা সহজ। এর পরিবর্তে, আজ সে কী ধরনের ব্যক্তি হয়ে উঠেছে তা দেখুন! অতীতকে তার মতো যেতে দিন।
আমরা এমন কথা বলি যা আসলে আমরা বোঝাতে চাই না এবং ক্ষতি করি এমন ব্যক্তির যাকে অজান্তেই ভালোবাসি। মনে রাখবেন শরীর ঠিক করা হৃদয় ঠিক করার চেয়ে সহজতর। সব সময় সচেতন থাকুন।
কিছু লোক তাদের ভুলের পক্ষে যুক্তি দিতে ভালোবাসেন। ‘দুঃখিত’ শব্দ তাদের শব্দভাণ্ডারে নেই। তারা নড়তে চায় না। নিজের ভুল স্বীকার করতে সাহস এবং চরিত্র লাগে।
অন্যদের সম্পর্কে খারাপ চিন্তা না করার জন্য নিজের মনকে প্রশিক্ষণ দিন। সর্বদা সব কিছুর জন্য অজুহাত দেয়া ঠিক নয় কারণ আসল ন্যায্যতা কি তার পুরোটা আমরা জানি না। সর্বশক্তিমান জানেন।
আপনার মনের মধ্যে কারো প্রতি বিরক্তি লালন করবেন না। এটি একটি আবেগযুক্ত বিষ যা আপনাকে ধীরে ধীরে তবে অবশ্যই হজম করবে। ক্ষমা এটিকে মুছে ফেলবে।
আপনি যদি উভয় জগতে মনের শান্তি চান; প্রার্থনা করুন, অন্যকে ক্ষমা করুন, পাপ মুছে ফেলুন, হৃদয়কে রোগমুক্ত করুন, অন্যকে সাহায্য করুন এবং কল্যাণ ছড়িয়ে দিন।
আপনি কি আরো অর্থবহ জীবন চান? বিরক্তি, নেতিবাচক কথা বলা এবং অন্যের সমালোচনা করা ছেড়ে দিন। আপনার নিজের বিষয়গুলোতে মনোনিবেশ করুন। প্রয়োজনে অন্যকে সহায়তা করুন।
আপনার হৃদয়কে খাঁটি ও নরম রাখতে ক্ষমা করতে শিখুন। প্রতিটি দিন শেষে, সব নেতিবাচকতা ঝেড়ে ফেলুন। আপনি এটি হৃদয় থেকে মুছে দিন। হৃদয়কে নিরাময় হতে দিন।
হে পরাক্রমশালী। আমাকে অনেকবার ক্ষমা করেছেন, আমি আপনাকে ধন্যবাদ দিতে ভুলে গিয়েছি এবং আমার প্রতি কৃপা করছেন। আপনি আমার ওপর দয়ার নজর দিয়ে রেখেছেন তবুও।
জীবন অতিশয় সংক্ষিপ্ত। আমরা সেটি জানি। তবে আপনি যখন নিজের প্রিয় কাউকে হারিয়ে ফেলেন, তখন তা আপনাকে খুব কষ্ট দেয়। তাই সর্বদা অন্যকে ক্ষমা করুন, ঘৃণা করবেন না এবং ক্ষোভ লালন করবেন না।
লোকেরা যখন আপনার সাথে খারাপ ব্যবহার করে, তখন তা আপনাকে যেন নির্দয় করে না তুলে। আপনার প্রতি অবিচার করা হয়েছিল বলে অন্যের প্রতি কখনোই অন্যায় করবেন না। পরিবর্তে, এখান থেকে শিক্ষা নিন।
পরাক্রমশালী। অহঙ্কার এবং গর্ব থেকে আমাদের রক্ষা করুন। আমরা যদি কারো দ্বারা সংক্ষুব্ধ হই তবে দ্রুত তা ঠিক করার তৌফিক দিন এবং আপনার জন্যই যেন আমরা একে অপরকে ক্ষমা করি- সে ক্ষমতা দিন।
এমন ব্যক্তি হওয়ার চেষ্টা করুন যিনি সর্বশক্তিমানকে সন্তুষ্ট করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন। ভালো আচরণের চেষ্টা করুন। অন্যরা যদি আপনাকে অসম্মান করে তাতে কিছু মনে করবেন না। বরং তাদের জন্য প্রার্থনা করুন।
আপনার অনুভূতি অস্থায়ী। কিন্তু এই অনুভূতির প্রতি আপনি কিভাবে প্রতিক্রিয়া দেখান তা আপনার জীবনে প্রভাব ফেলতে পারে। নেতিবাচক সব কিছুকে বিদায় দিন। এসবকে আপনার ওপর নিয়ন্ত্রণ করতে দেবেন না।
হৃদয়কে পরিশুদ্ধ রাখুন, কেবল পাপ থেকে নয় বরং কারো প্রতি ক্রোধ, ক্ষোভ এবং নেতিবাচকতা থেকেও। নিজেকে সংশোধন করুন এবং ক্ষমা প্রার্থনা করুন। দেখবেন হৃদয় থেকে আলো ছড়াবে।

এই বিভাগের আরও সংবাদ